সংবাদ শিরোনামঃ
সুন্দরবনে বাঘের শিকার হয়ে প্রাণ গেল মৌয়াল মনিরুজ্জামান বাচ্চুর শ্যামনগরে এমপি দোলনের গাড়িতে হামলা, ছোঁড়া ইটে মৎস্যজীবিলীগ নেতা আহত,আটক এক কয়রায় ইউপি মেম্বার কে কুপিয়ে জখম করলেন দুর্বুত্তরা ক্ষতিকর জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধ ও জলবায়ু সুবিচার দাবি সাতক্ষীরার তরুণ জলবায়ু কর্মীদের শ্যামনগরে জলবায়ু ধর্মঘট পালিত হলো ইছামতি নদীরপাড় কেটে পাইপ বসিয়ে মৎস্য পয়েন্ট তৈরি, ঝুঁকিতে বেড়িবাঁধ দেবহাটায় স্পন্সরশিপ শিশুদের জন্মদিন পালন দেবহাটায় ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে ৪ বার গর্ভের সন্তান নষ্টের অভিযোগ শ‍্যামনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে সাইদুজ্জামান সাঈদ সাব জয়ী অনুর্ধ ১৬ নারী জাতীয় ফুটবল দলের উপকূলের ফুটবলার সাথী মুন্ডা পেলেন সংবর্ধনা 
শ্যামনগর কৈইখালী ৪৪ বছর পর সীমানার ঝামেলা নিষ্পত্তি 

শ্যামনগর কৈইখালী ৪৪ বছর পর সীমানার ঝামেলা নিষ্পত্তি 

উৎপল মণ্ডল,শ্যামনগর প্রতিনিধি: শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নের অন্তর্গত বৈশখালী গ্রামে কৈখালী বন্দোবস্ত এস এ -৭ দাগের মধ্যে সঠিক কাগজপত্র।অনুযায়ী,ও স্কেচ ম্যাপ অনুসারে ৬৬ শতক জমি উভয় পক্ষ পরস্পর প্রতিবেশী আমানত ও মোরশেদ গাজী,(প্রতিবন্ধীর মোরশেদ গাজীর) মধ্যে ৪৪ বছর যাবত বসতভিটা জমি নিয়ে বিরোধের কারণে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থানে। মোরশেদ গাজী ন্যায্যভাবে জমি পাবার জন্য আবেদন করেন। বিপক্ষগণ প্রভাবশালী হওয়ায় ন্যায্য বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার পর,সর্বশেষ ইংরেজী তারিখ ০৩/০৮/২৩ কমিশনার ভূমি বরাবর মোরশেদ গাজীর পুত্র আব্দুল আলিম লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ভূমি কমিশনার মহোদয় বিষয়টি আমলে নিয়ে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার জন্য স্মারক ১১/০২/২৩ – ৭৯৫ কৈখালী তফসিল অফিস বরাবর প্রমাণ করে।নোটিশ এর মাধ্যমে অবগত পূর্বক কাগজপত্র পর্যলোচনা পূর্বে মাপ জরিপ আনতে ১৩ শতক জমি বেশি ভোগ দখলে থাকাই। অতিরিক্ত জমি মোরশেদ গাজীকে বুঝিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব করলে দৃড় ভাবে প্রত্যাখ্যান জেরে এবং জোর জবর দখল করার হুমকি ও গালিগালাজ করলে এম, এ, টি, এম আয়নুল হক ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা স্মারক নং ৫৯২, তারিখ ১৩/০৬/২০২৩ বন্দোবস্ত নীতিমালায় লংঘন কারী আমানত গাজীর দলিল বাতিল করার প্রস্তাব করেন।

এ ছাড়া মোরশেদ গাজীর পুত্র মিলন সরকারি কমিশনার সার্ভিয়ার কর্তৃক মাপ জরিপের আবেদন করেন। সহকারী কমিশনার মোঃআসাদুজ্জামান ও সার্ভিয়ার মোঃ সজল হোসেন উভয় পক্ষের কাগজপত্র পর্যলোচনা করে দেখেছেন,যে মোরশেদ গাজী ভূমিহীন পরিবার হিসেবে ০১/০৯/১৯৮৩ তারিখ ১৯৮৫ থেকে ৯৯ বছর মেয়াদে কৈইখালী মৌজার ০১ নং খতিয়ানের ৭৬০ দাগে ৬৬ শতক জমি স্হায়ী বন্দোবস্ত দেওয়া হয়।একই দাগে বিপক্ষগনের ১৪/০৪/১৯৯২ – ৯২ শতক জমি স্হায়ী বন্দোবস্ত দেওয়া হয়।বন্দোবস্ত প্রতিক্রিয়ায় স্কেচ ম্যাপ অনুসারে এসিল্যান্ড ও সার্বিয়ার কর্তৃক ৬৬ শতক জমির সীমানা করে লাল পতাকা দিয়ে খুঁটিগেড়ে দেয়।জমির কিছু অংশ আমন ধান থাকায় ফসল সংগ্রহের পর স্বস্ব স্থানে ভোগ দখলের আদেশ প্রদান করেন।সেই আদেশ অনুযায়ী ফসল সংগ্রহের পর লাল নিশানা বরাবর ঘেরা দিয়ে মোরশেদ গাজী ভোগ দখল করেন।প্রতিবন্ধি মোরশেদ গাজীর পরিবার ও এলাকা বাশি৪৪ বছর পর দীর্ঘ দিনের বসতভিটার সীমানাজুড়ে যে ঝামেলা নিষ্পত্তি করেছেন।ভূমি কমিশনার মোঃ আসাদুজ্জামান ও সার্ভিয়ার মোঃ সজল হোসেন এমন আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণে এলাকা বাশি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগীতায়- সুন্দরবন আইটি লিমিটেড