সংবাদ শিরোনামঃ
বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন আওয়ামী,যুবলীগের কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে পেঁয়াজের ঝাঁঝে দমবন্ধ সাধারণ ক্রেতার, ৩ জনকে জরিমানা মোংলায় বেগম রোকেয়া দিবসে ৫ নারীকে জয়িতা সংবর্ধনা মোরেলগঞ্জে দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত মোরেলগঞ্জে ফেরি থেকে নদীতে পড়ে বৃদ্ধ নিখোঁজ নুন আনতে পান্তা ফুরানো বাঘ বিধবা মুনজিলার জীবন শ্যামনগর গাবুরা থেকে ৬০ কেজি হরিণের মাংস উদ্ধার করেছে বনবিভাগ বাগেরহাটে ভ্যান চালক হত্যা মামলায় তিন ছিনতাইকারি গ্রেফতার শ্যামনগরে আড়পাঙ্গাশিয়া প্রিয় নাথ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ২০২৩ কালিগঞ্জের পানিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ
গাবুরা ইউনিয়ন ডিজিটাল তথ্য সেবা কেন্দ্রে রবিউলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ

গাবুরা ইউনিয়ন ডিজিটাল তথ্য সেবা কেন্দ্রে রবিউলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ

গাবুরা শ্যামনগর প্রতিনিধি: শ্যামনগর উপজেলার ১২নং গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের সেবা নিতে আসা সাধারন মানুষকে জিম্মি করে নির্ধারিত ফি এর চেয়ে অতিরিক্ত ফি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের উদ্দোক্তা কবিরুলের সহকারী রবিউলের বিরুদ্ধে।

ভুক্তভোগীরা বলেন, গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল তথ্য ও সেবা কেন্দ্রের যাত্রা শুরুর পর থেকে (ইউডিসি) উদ্যোক্তার কবিরুল ইসলামের সহকারী চাঁদনীমুখা গ্রামের মোঃ নেমাই গাজীর ছেলে রবিউল ইসলাম ইউনিয়ন পরিষদের সকল কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। বর্তমান সরকার ডিজিটাল দেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে প্রতিটি ইউনিয়নের জনসাধারনের মাঝে ডিজিটাল তথ্য ও সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে যে প্রকল্প হাতে নিয়েছেন তা যেন রাঘব বোয়াল গিলে খাচ্ছে। জন্ম নিবন্ধন, মৃত্যু সনদ, ভিজিডি র্কাডের আবেদনের জন্য অসদাচারণ, অসম্পূর্ণ কাজ, অদক্ষতা সহ সেবা কেন্দ্রে সঠিকভাবে সময় না দেওয়ারও    অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরদারী না থাকার কারনে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র থেকে সেবার বিনিময়ে মিলছে হয়রানি। জরুরি প্রয়োজনের তাগিদে বাধ্য হয়ে এসব অনিয়ম সহ্য করছেন এলাকার সাধারন মানুষ।

গ্রাহকদের সাথে অন্যায় আচরণ যেন তার নিত্য দিনের সঙ্গী। জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম নির্ধারিত ৫০ টাকার বদলে নেওয়া হচ্ছে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত, এবং জরুরি প্রয়োজনে কেউ জন্ম সনদ নিতে চাইলে ফি আরো বেশি। জন্ম সনদের ভুল সংশোধন করতে আসা সাধারণ জনগণ হয়রানি হতে হয় ১ থেকে ২ মাস পর্যন্ত।বিষয়টি নিয়ে কয়েকজন প্রতিবাদ করে রবিউল ইসলাম কাছে হেনস্তার স্বীকার হয়েছেন।

ইউনিয়ন পরিষদের কয়েকজন সদস্য জানান, আমরা জনপ্রতিনিধিরা তাই ইউনিয়ন পরিষদের তথ্য কেন্দ্রের উদ্যােক্তার সহ-কর্মচারীর কাছে কোন মূল্য পাই না। পরিষদের সদস্য হওয়া সত্বেও যদি তাদের কাছে কোন মূল্য না পাই, তাহলে সাধারণ জনগণ কি মূল্যায়ন পাবে।

এ বিষয়ে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জি, এম, মাছুদুল আলম বলেন,অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে আমি বিষয়টি জানিনা কিন্তু (ইউডিসি) উদ্যোক্তার সহ-কর্মচারীর রবিউল ইসলাম যদি অতিরিক্ত টাকা নিয়ে থাকে তাহলে আমি তদন্ত সাপেক্ষে সে বিষয়ে প্রয়োজন ব্যবস্থা নিবো।

শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আক্তার হোসেন বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের জন্ম নিবন্ধন সহ অন্যান্য কার্যক্রমে সরকার নির্ধারিত ফির বাহিরে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার কোনো বিধান নেই। আমাকে কেউ কখনো অভিযোগ করেনি ও জানায়নি, যেহেতু বিষয়টি এখন জেনেছি তাই তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগীতায়- সুন্দরবন আইটি লিমিটেড